এই মাত্র

উপমহাদেশে অস্ট্রেলিয়া এখনও স্পিন দুর্বল : হোয়াটমোর

দল বিশ্ব ক্রিকেটের পরাশক্তি হলেও উপমহাদেশে অস্ট্রেলিয়ার স্পিন দুর্বলতা নতুন কিছু নয়। টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টি যেকোন ফর্মেটেই হোক না কেন উপমহাদেশের স্পিনাররা সব সময়ই অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলছে।

স্পিন দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য অনেক দিন থেকেই চেষ্টা করে আসছে অসিরা। এমনকি উপমহাদেশে সফরের আগে তারা কখনো দুবাই কিংবা ডারউইনে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করে থাকে। আবার এ অঞ্চলে সফরের আগে স্পিন দুর্বলতা কাটাতে পরামর্শক হিসেবে উপমহাদেশের স্পিন বিশেষজ্ঞ নিয়োগ দিয়ে থাকে।

কয়েক দিন আগে বাংলাদেশ সফরে ঢাকা টেস্টে ২০ রানে পরাজিত হয়েছে স্টিভ স্মিথের দল। তাদের এ পরাজয়ের মূল কারণ ছিল স্পিন দুর্বলতা। অবশ্য চট্টগ্রাম টেস্ট জিতে দুই ম্যাচ সিরিজ ড্র করেই বাংলাদেশ ত্যাগ করতে পেরেছে তারা। কিন্তু তারপরও বাংলাদেশি স্পিনের বিরুদ্ধে অসি ব্যাটসম্যানদের জড়তা ছিল চোখে পড়ার মত।

বাংলাদেশ সফর শেষে সিমিত ওভারের সিরিজ খেলতে ভারত সফর করছে অস্ট্রেলিয়া দল। টাইগাররা দীর্ঘ দিন পর লংগার ভার্সন খেললেও সব ফর্মেটেই দারুণ ছন্দে আছে টিম ইন্ডিয়া। বাংলাদেশের চেয়ে ভারতীয় দলের স্পিন বিভাগ আরও বেশি শক্তিশালী। মাত্রই শ্রীলঙ্কা সফরে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টােয়েন্টি সিরিজে লঙ্কানদের হোয়াইটওয়াশ করেছে বিরাট কোহলির দল। গত দুই বছর যাবতই দারুণ ছন্দে আছে ভারত।

চেন্নাইয়ে আগামী ২০ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া ওয়ানডে সিরিজে অস্ট্রেলিয়া কি পারবে ভারতের জয় রথ থামাতে?
বাংলাদেশ দলের সাবেক কোচ ডেভ হোয়াটমোরের বিশ্বাস ভারতের জয় রথ থামাতে স্মিথের দলকে তাদের সেরাটা দিতে হবে।

বাংলাদেশ প্রথম টেস্টে পরাজিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া ঘুড়ে দাঁড়ানোর পর হোয়াটমোর বলেছেন, ‘নিশ্চিতভাবেই ভারত দারুণ ছন্দে আছে। তারা শ্রীলঙ্কায় ভালো করেছে। স্বাভাবিকভাবেই একই ফর্ম নিয়ে তারা সিরিজ শুরু করতে চাইবে। এপথে বাঁধা হতে চাইলে অস্ট্রেলিয়াকে অবশ্যই সেরাটা দিতে হবে।’

হোয়াটমোর বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রথম টেস্টে পরাজিত হওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই অস্ট্রেলিয়া আপসেট হয়েছে। দ্বিতীয় টেস্টে তারা ঘুড়ে দাঁড়াতে পেরেছে। উপমহাদেশে অনেক ক্রিকেট খেললেও ঢাকা টেস্টে পরাজয়ের কথা তাদের স্মরণে থাকবে এবং মূলত এটা তাদের মনে দারুণ প্রভাব ফেলবে।’

তাহলে কিভাবে অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফর শুরু করা উচিত?

তিনি বলেন, ‘আপনি অতীতের ভাবনা আকড়ে থাকতে পারেন না। আপনাকে সামনের দিকে এগুতে হবে, ইতিবাচক থাকতে হবে এবং নতুন করে শুরু করতে হবে। সঠিক কম্বিনেশন ঠিক করতে অনুশীলন ম্যাচকে ব্যবহার করতে হবে।’

১৯৯৬ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কাকে শিরোপা এনে দেয়া এ কোচ আরও বলেন, উপমহাদেশে ও আইপিএল খেলার অভিজ্ঞতা থাকলেও অস্ট্রেলিয়ানরা এখনো স্পিন খেলার সেরা কৌশল রপ্ত করতে পারেনি। বাংলাদেশও তাদের ধুকতে হয়েছে। অসি ব্যাটসম্যানদের অধিকাংশই চায় বল ব্যাটে আসুক। হাতে গোনা কয়েকজনের মধ্যে ধৈর্য্য ধারনের ক্ষমতা আছে এবং ভাল করছে। আপনি লক্ষ্য করলে দেখবেন অস্ট্রেলিয়ানরা সাধারণত এমন ধরনের পিচে খেলে যেখানে বল ব্যাটে আসে অথবা বল উইকেটরক্ষকের হাতে জমা পড়ে।

সর্বশেষ ভারত সফরে অস্ট্রেলিয়ানরা কৌশল হিসেবে স্যুইপ শটকে একটা কৌশল হিসেবে নিয়েছিল। স্পিন মোকাবেলার জন্য এক স্টেপ এগিয়ে এবং আক্রমণাত্মক হওয়াকে একটি কার্যকর একটি কৌশল হিসেবে দেখছেন সাবেক ক্রিকেটাররা।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে ৬৩ বছর বয়সী হোয়াটমোর বলেন, স্পিন মোকাবেলার পরীক্ষিত একটি পদ্ধতি হচ্ছে স্যুইপ। কিন্ত এক ধাপ বাইরে বেড়িয়ে এবং খেলতে হলে ব্যাটে বল পেতে হবে। অস্ট্রেলিয়া স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার এবং গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের উপড় নির্ভরশীল থাকবে। কিন্তু আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে- থিতু হয়ে এদের একজনকে শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে হবে। এটাই গুরুত্বপূর্ণ হবে।

অস্ট্রেলিয়া দলে আছেন দুই স্পিনার এ্যাস্টন আগার ও এডাম জাম্পা। তারা ভারতীয় টপ অর্ডারকে সমস্যায় ফেলতে পারবেন?

অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এ ব্যাটসম্যান বলেন, এটা কঠিন হবে। তারা হয়তো একটা স্পেলে ভাল করতে পারে। তবে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের আটকানো কঠিন হবে। ভারতীয়রা এ ধরনের পিচে খেলেই বড় হয়েছে। সুতরাং তাদের খুব সমস্যা হবেনা। জাম্পার জন্য এটা হবে একটা শিক্ষণীয় সফর। অভিজ্ঞতা অর্জনের মাধ্যমে সে একজন ভাল স্পিনারে পরিণত হতে পারে।

বাংলাদেশ সিরিজে দেখা গেছে নাথান লিঁও খুবই ভাল করেছে। ভারত সফরে তাকে দলে না রেখে নির্বাচকরা ভুল করেছে কিনা?

তিনি বলেন, ‘লিঁও একজন অভিজ্ঞ বোলার। সে হয়তোবা কার্যকর হতেও পারত, আপনি তা জানেন না।’ সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

Check Also

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ দেখাবে যেসব চ্যানেল

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ম্যাচ নিয়ে বাড়তি আগ্রহ আছে বাংলাদেশি ভক্তদের। বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচে আগামীকাল ভোরে মেসির আর্জেন্টিনা …

Powered by keepvid themefull earn money