এই মাত্র

হোয়াইটওয়াশ তো বটেই, ইনিংস হারের শঙ্কায় শ্রীলঙ্কা

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় পাল্লেকেলে টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষেই ভারতের কাছে বিধ্বস্তের পথে শ্রীলঙ্কা। টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ তো বটেই, দ্বিতীয় টেস্টে ইনিংস হারের শঙ্কায় পড়েছে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা।

ওপেনার শিখর ধাওয়ানের পর অলরাউন্ডার হার্ডিক পান্ডের ১০৮ রানের সুবাদে প্রথম ইনিংসে ৪৮৭ রানে অলআউট হয় ভারত। এরপর ব্যাটিং-এ নেমে ১৩৫ রানে গুটিয়ে ফলো-অনে পড়ে শ্রীলঙ্কা।

দিনের শেষভাগে ব্যাট হাতে নেমে দিন শেষে ১ উইকেটে ১৯ রান করেছে লঙ্কানরা। ইনিংস হার এড়াতে ৯ উইকেট হাতে নিয়ে এখনও ৩৩৩ রান করতে হবে সিরিজের প্রথম দু’ম্যাচে হারের লজ্জা পাওয়া শ্রীলঙ্কাকে।

দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ানের ১১৯ ও লোকেশ রাহুলের ৫৮ রানের কল্যাণে সিরিজের তৃতীয় টেস্টের প্রথম দিন ৬ উইকেটে ৩২৯ রান সংগ্রহ করে ভারত। দিন শেষে উইকেটরক্ষক ঋদ্ধিমান সাহা ১৩ ও হার্ডিক পান্ডে ১ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন। দ্বিতীয় দিন ব্যক্তিগত ১৬ রানে ফিরে যান সাহা।

এরপর বাঁ-হাতি স্পিনার কুলদিপ যাদবকে নিয়ে লড়াই শুরু করেন পান্ডে। দু’জনের ব্যাটিং দৃঢ়তায় ভারতের স্কোর পেরিয়ে যায় ৪শ’তে। জুটিতে ৬২ রান যোগ করে ব্যক্তিগত ২৬ রানে থামেন কুলদিপ। এরপর ৮ রানের ছোট ইনিংস খেলে ফিরে যান পেস বোলার মোহাম্মদ সামিও। দলীয় ৪২১ রানে নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে সামির বিদায়ের পর ভারতের ইনিংস দ্রুতই গুটিয়ে যাবার কথা। কিন্তু সেটি হতে দেননি পান্ডে।

শেষ ব্যাটসম্যান পেসার উমেশ যাদবকে নিয়ে বুক উচিয়ে লড়াই করেছেন ৬১ বলে ৫০ রানে থাকা পান্ডে। এরপর শ্রীলঙ্কার বোলারদের উপর টনের্ডো বইয়ে দিয়েছেন পান্ডে। বিশেষভাবে বাঁ-হাতি স্পিনার মালিন্দা পুস্পকুমারাকে। ১১৬তম ওভারে পুস্পকুমারার ছয় ডেলিভারি থেকে যথাক্রমে ৪,৪,৬,৬,৬,০ রান নেন পান্ডে। টেস্ট ইতিহাসে প্রথম কোন ভারতীয় হিসেবে এক ওভারে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহেররেকর্ড গড়েন তিনি।

রেকর্ডের পর সেঞ্চুরিও তুলে নেন পান্ডে। টেস্ট ও প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া পান্ডে একই সঙ্গে দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে মধ্যাহ্ন-বিরতির আগে ১০৭ রান যোগ করে রেকর্ড বইয়েও নাম লেখান। ভারতের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে এমন কীর্তি গড়লেন পান্ডে।

শেষ পর্যন্ত ৮টি চার ও ৭টি ছক্কায় ৯৬ বলে ১০৮ রান করে আউট হন পান্ডে। ভারত থামে ৪৮৭ রানে। পান্ডেকে শিকার করে টেস্ট ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মত ৫ উইকেট শিকার করলেন শ্রীলঙ্কার বাঁ-হাতি স্পিনার লক্ষণ সান্দাকান। এ জন্য তিনি খরচ করেছেন ১৩২ রান। এ ছাড়া আরেক বাঁ-হাতি স্পিনার মালিন্দা পুস্পকুমারা নেন ৩ উইকেট।

ভারত গুটিয়ে যাবার পর নিজেদের প্রথম ইনিংসে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে শ্রীলঙ্কা। ফলে ১৩৫ রানেই গুটিয়ে যায় তারা। ভারতের কুলদিপ ৪টি, অশ্বিন-সামি ২টি করে উইকেট নেন। শ্রীলঙ্কার পক্ষে অধিনায়ক দিনেশ চান্ডিমাল সর্বোচ্চ ৪৮, উইকেটরক্ষক নিরোশান ডিকবেলা ২৯ ও কুশল মেন্ডিস ১৮ রান করেন।

প্রথম ইনিংসে ৩৫২ রানে পিছিয়ে ফলো-অনে পড়ে শ্রীলঙ্কা। তাই আবারও ব্যাট হাতে নেমে দিন শেষে ১ উইকেটে ১৯ রান করেছে তারা। ৭ রান করে ভারতের পেসার উমেশের শিকার হন ওপেনার উপুল থারাঙ্গা। আরেক ওপেনার দিমুথ করুনারত্নে ১২ ও পুস্পকুমারা ০ রানে অপরাজিত আছেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
ভারত প্রথম ইনিংস : ৪৮৭/১০, ১২২.৩ ওভার (ধাওয়ান ১১৯, পান্ডে ১০৮, রাহুল ৮৫, সান্দাকান ৫/১৩২)।
শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস : ১৩৫/১০, ৩৭.৪ ওভার (চান্ডিমাল ৪৮, ডিকবেলা ২৯, কুলদিপ ৪/৪০)।

শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস : ১৯/১, ১৩ ওভার (করুনাত্নে ১২*, থারাঙ্গা ৭, উমেশ ১/৩)।

Check Also

শুটিং সেটে শিশু রাজ্যকে মানসিক চাপ, মায়ের উকিল নোটিশ

শিশু অধিকারের পরিপন্থি ও মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নির্মাতা আদনান আল রাজীবকে (পরিচালক রান আউট …

Powered by keepvid themefull earn money