এই মাত্র

কাল ঠিকভাবে হ্যান্ডল করাটাই জরুরি : সাকিব

ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই মহাবিপদে পড়ে যায় স্বাগতিক বাংলাদেশ। ৪ ওভার শেষে স্কোর বোর্ডে ১০ রান ওঠতেই হারাতে হয় ৩ উইকেট। এমন সময় ব্যাট হাতে নিজেদের সেরাটা উজার করে দিয়েছেন বাংলাদেশের দুই সেরা খেলোয়াড় ওপেনার তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান।

চতুর্থ উইকেটে ১৫৫ রানের জুটি গড়েন তামিম-সাকিব। যা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চতুর্থ উইকেটে সর্বোচ্চ রানের জুটি। আর এই জুটির কারণেই দিন শেষে ২৬০ রানের পুঁজি পায় টাইগাররা। দিনের শেষ ভাগে ১৮ রানে ৩ উইকেট ফেলে দিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে চেপে ধরে বাংলাদেশ। তাই দিন শেষে তামিম-সাকিবের জুটিটি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে গেছে।

এমনটা মনে করেন সাকিব নিজেও। প্রথম দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাকিব বলেন, উইকেট অনেকটা চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমার কাছে মনে হয় আমরা দু’জন খুব ভালো অ্যাপ্লাই করতে পেরেছি। আমাদের জুটিটা ম্যাচের জন্য জরুরি ছিল। কন্ডিশনের দিক থেকে বিবেচনা করলে খুব ভালো ছিল।

তিনি বলেন, আমরা হয়তো এখন ড্রাইভিং সিটে আছি। তবে কালকে (সোমবার) একটা নতুন দিন এবং আমাদের আরও সাতটা উইকেট নিতে হবে। সুতরাং সেটাও আমাদের মাথায় আছে। এ ছাড়া ওদের ভালো কয়েকজন ব্যাটসম্যান আছে। আমাদের ফোকাস ঠিক রাখতে হবে। যেহেতু টেস্ট ম্যাচ। প্রতিটি দিনেই নতুন নতুন পরিস্থিতি আসে। সেগুলো ঠিকভাবে হ্যান্ডল করাটাই জরুরি।

একসাথে ২৪৯ বল মোকাবেলা করে ১৫৫ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটি গড়েন তামিম-সাকিব। এই নিয়ে মাত্র পাঁচবার একসাথে বড় জুটি গড়েছেন তারা। সাকিব বলেন, প্রথম সেশন যাওয়ার পর আমরা আরও ভালো ব্যাটিং করছিলাম। কিন্তু দুঃখজনকভাবে দুটো বল লাফিয়ে উঠেছিল। ওই জন্যই আমাদের উইকেটটা হারাই। আমার কাছে মনে হয়, আমাদের জন্য কাজটা সহজ ছিল। কারণ অনেক দিন যাবত এক সঙ্গে খেলছি। আমাদের মধ্যে বোঝাপড়ার অভাব আছে, এমনও নয় ব্যাপারটা। দু’জনেরই ৫০ টেস্ট হচ্ছে। বোঝাপড়া নিয়ে শঙ্কা থাকার কথা নয়।

দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরির সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন সাকিব। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৮৪ রানেই থেমে যেতে হয় তাকে। তাই সেঞ্চুরির আক্ষেপ সাকিবের, সেঞ্চুরি মিসের আক্ষেপ থাকবে। করতে পারলে ভালো লাগতো। যতোটা করতে পেরেছি, খুশি। তবে অবশ্যই আরও কিছু করতে পারলে তো আরও খুশি হতাম।

প্রথম দিন শেষে যা অবস্থা, তাতে ভালো অবস্থায় বাংলাদেশ। তাই দ্বিতীয় দিনের পরিকল্পনা নিয়ে সাকিব বলেন, কালকের পরিকল্পনা থাকবে ভালো জায়গায় বোলিং করে যাওয়া। উইকেট পাওয়া না পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। কিন্তু ভালো জায়গায় বোলিং করা আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে। চেষ্টা থাকবে সেটাই ঠিকভাবে করার।

অস্ট্রেলিয়ার ৩ উইকেট তুলে নিলেও, এখনও বাংলাদেশের সামনে হুমকি হিসেবে আছেন সফরকারী অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। এমনটা মনে করেন সাকিবও, অবশ্যই স্মিথ সবচেয়ে বড় হুমকি। সে বিশ্বের এক বা দুই নম্বর ব্যাটসম্যান। তার রেকর্ডই ওর হয়ে কথা বলে। সর্বশেষ সে যখন ভারতের মাটিতে খেলেছে সেখানেও সেঞ্চুরি করেছে। ওর মতো বিশ্বমানের ব্যাটসম্যানকে বোলিং করা বিরাট চ্যালেঞ্জ। তাই এখন পর্যন্ত স্মিথ আমাদের বড় হুমকি।

Check Also

শুটিং সেটে শিশু রাজ্যকে মানসিক চাপ, মায়ের উকিল নোটিশ

শিশু অধিকারের পরিপন্থি ও মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নির্মাতা আদনান আল রাজীবকে (পরিচালক রান আউট …

Powered by keepvid themefull earn money