এই মাত্র

জোড়া সেঞ্চুরিতে লিড নিল শ্রীলঙ্কা

হ্যামিল্টন মাসাকাদজার সেঞ্চুরি বৃথা করে দিয়ে নিজেরা সেঞ্চুরি করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দলকে লিড এনে দিলেন শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনার নিরোশান ডিকবেলা ও দানুষ্কা গুনাথিলাকা। হাম্বানটোটায় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সফরকারী জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটের ব্যবধানে হইরয়েছে শ্রীলঙ্কা। ফলে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা।

দ্বিতীয় ওয়ানডের মত এ ম্যাচে টস জিতে প্রথমে জিম্বাবুয়েকে ব্যাটিং করার আমন্ত্রণ জানায় শ্রীলঙ্কা। দলকে ৩৯ রানের সূচনা এনে দেয়ার পর ব্যাট হাতে শ্রীলঙ্কার বোলারদের শাসন করেন মাসাকাদজা। দ্বিতীয় উইকেটে তারিসাই মুসাকান্দার সাথে ১১৫ বলে ১২৭ রানের জুটি গড়েন তিনি। মুসাকান্দা ৪৮ রানে ফিরলেও, এক প্রান্ত আগলে জিম্বাবুয়ের রানের চাকা সচল রাখেন। এতে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরির স্বাদ পান মাসাকাদজা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এটিই তার ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি।

তবে তিন অংকে পা দিয়ে নিজের ইনিংসটাকে আর খুব বেশি বড় করতে পারেননি মাসাকাদজা। দলের ৩৩তম ইনিংসের প্রথম বলে আউট হন তিনি। তখন মাসাকাদজার নামের পাশে জ্বলজ্বল করছিল ১১১ রান। তার ৯৮ বলের ইনিংসে ১৫টি চার ও ১টি ছক্কার মার ছিল।

মাসাকাদজার বিদায়ের পর জিম্বাবুয়ের স্কোরকে রানের পাহাড়ে বসিয়েছেন পরের দিকের ব্যাটসম্যানরাও। সিন উইলিয়ামসের ৪৭ বলে ৪৩, শেষের দিকে উইকেটরক্ষক পিটার মুরের ১১ বলে ঝড়ো ২৪ ও সিকান্দার রাজার ১৭ বলে অপরাজিত ২৫ রানের উপর ভর করে ৮ উইকেটে ৩১০ রানের বড় সংগ্রহ পায় জিম্বাবুয়ে। শ্রীলঙ্কার পক্ষে হাসারাঙ্গা ও গুনাএত্ন ২টি করে উইকেট নেন।

জয়ের জন্য ৩১১ রানের জবাবটা শক্তহাতেই দেন শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনার ডিকবেলা ও গুনাথিলাকা। জিম্বাবুয়ের ফিল্ডার ক্যাচ ফেলার সুযোগটা ভালোভাবেই কাজে লাগান তারা। দু’জনই তুলে নেন সেঞ্চুরি। আর দলকে উদ্বোধণী জুটিতে এনে দিয়েছেন ২২৯ রান।

শ্রীলঙ্কার পক্ষে যেকোন উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ রানের ক্ষেত্রে এটি পঞ্চমস্থানে। আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ও যেকোন উইকেট জুটিতে এই রান দ্বিতীয়স্থানে। এ ছাড়া ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৭তম ম্যাচে এসে প্রথম সেঞ্চুরি তুলে ১০২ রানে ফিরে যান ডিকবেলা। ১১৬ বল মোকাবেলা করে ১৪টি বাউন্ডারির মার ছিল। ডিকবেলা আউটের ৮ রান পরই থেমে যান গুনাথিলাকাও। ১৫টি চার ও ১টি ছক্কায় ১১১ বলে ১১৬ রান করেন গুনাথিলাকা।

দুই সেঞ্চুরিয়ান যখন বিদায় নেন তখন শ্রীলঙ্কার জয়ের জন্য প্রয়োজন হয় ৭৩ বলে ৭৪ রান। দলের জয়ের জন্য বাকি কাজটুকু ভালোভাবেই সম্পন্ন করেন কুশাল মেন্ডিস ও উপুল থারাঙ্গা। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৫৭ বলে অবিচ্ছিন্ন ৭৫ রানের জুটি গড়েন তারা। মেন্ডিস ২৫ বলে ২৮ ও থারাঙ্গা ৩২ বলে ৪৪ রান করে অপরাজিত থাকেন।

ম্যাচের সেরা হয়েছেন গুনাথিলাকা। একই ভেন্যুতে আগামী ৮ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
জিম্বাবুয়ে: ৫০ ওভারে ৩১০/৮ (মাসাকাদজা ১১১, মুসাকান্দা ৪৮, উইলিয়ামস ৪৩, ওয়ালার ১৭, রাজা ২৫*)

শ্রীলঙ্কা: ৪৭.২ ওভারে ৩১২/২ (ডিকভেলা ১০২, গুনাথিলাকা ১১৬, মেন্ডিস ২৮*, থারাঙ্গা ৪৪*)

Check Also

শুটিং সেটে শিশু রাজ্যকে মানসিক চাপ, মায়ের উকিল নোটিশ

শিশু অধিকারের পরিপন্থি ও মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নির্মাতা আদনান আল রাজীবকে (পরিচালক রান আউট …

Powered by keepvid themefull earn money